Bangladesh Premier League T20
The fourth edition of the Bangladesh Premier League is going to take place in this coming November; BCB Media Committee chairman Jalal Yunus informed about the matter.
Latest topics
Buy Now
Sponsored
Facebook
Sponsored

সেরা ফিনিশার ধোনি!

View previous topic View next topic Go down

সেরা ফিনিশার ধোনি!

Post  nazmul07npk on Sat Feb 18, 2012 12:20 am

বিশ্বকাপ ফাইনালে ৭৯ বলে ৯১ করেছেন কিন্তু সেটা ঠিক আর এখনকার ধোনির ট্রেড মার্ক নয়। চুলের মতো সেই মারমার কাটকাট ব্যাটিংটাও তিনি ছেঁটে ফেলেছেন। এখন তিনি পরিণত, চিন্তাশীল এক মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যান। ছক্কার বিজ্ঞাপনের দিন পেছনে ফেলে যেন মাইকেল বেভান ঘরানার এক ফিনিশার। আর তাতে দক্ষতা এমন জায়গাতে গেছে যেন তুলনীয় হয়ে যাচ্ছেন মাইকেল বেভানের সঙ্গে।
এবারের ত্রিদেশীয় সিরিজে যেভাবে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে অপরাজিত ৪৪ করে জিতিয়েছেন আর অপরাজিত ৫৮ করে টাই করেছেন শ্রীলঙ্কার সঙ্গে তাতে তুলনাটা বাড়াবাড়িও নয়। একটা পরিসংখ্যান তুলে ধরা যাক। ২০০ ওয়ানডেতে ৫১.৪১ গড়ে ধোনির রান ৬৬৩২। অস্ট্রেলিয়ান ওয়ানডে কিংবদন্তি মাইকেল বেভান ২৩২ ম্যাচে ৫৫.৫৮ গড়ে করেছেন ৬৯১২ রান। গড়ে বেভান সামান্য এগিয়ে থাকলেও স্ট্রাইক রেটে ধোনি এগিয়ে অনেকখানি। ধোনির স্ট্রাইক রেট যেখানে ৮৮.৩২ সেখানে বেভানের ৭৪.১৬। স্ট্রাইক রেটে আবার ল্যান্স ক্লুজনার এগিয়ে ধোনির চেয়ে। দক্ষিণ আফ্রিকান অলরাউন্ডার ক্লুজনারের ১৭১ ম্যাচে স্ট্রাইক রেট ৮৯.৯১। তবে তাঁর গড় মাত্র ৪১.১০ আর রানও ধোনির প্রায় অর্ধেক ৩৫৭৬। ধোনির সেঞ্চুরি ৭টি, বেভানের ৬টি আর ক্লুজনারের ২টি। আর ছক্কায় তো এ দুজনের তুলনায় রীতিমতো অপ্রতিদ্বন্দ্বী। ধোনির ছক্কা ১৩৫টি সেখানে বেভানের ২১ আর ক্লুজনারের ৭৬টি। বুঝতেই পারছেন ৫-৭ নম্বরে নেমে মাথাটা ঠাণ্ডা রেখে দলকে জয়ের বন্দরে পেঁৗছে দেওয়ায় কতটা এগিয়ে ধোনি। তাই কালের কণ্ঠের কাছে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিপিএলে আসা বেভান সময়ের সেরা ফিনিশারের আখ্যা দিয়েছেন ধোনিকেই।
উইকেটরক্ষক হিসেবেও নতুন একটা রেকর্ড গড়েছেন ধোনি। একমাত্র ভারতীয় উইকেটরক্ষক হিসেবে ২০০ ওয়ানডে খেলা ক্রিকেটার এখন তিনিই। অ্যাডিলেডে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি ছিল ওয়ানডেতে তাঁর ২০০তম। উইকেটরক্ষক হিসেবে ২০০ বা তার বেশি ম্যাচ খেলেছেন কেবল পাঁচজন। দক্ষিণ আফ্রিকার মার্ক বাউচার ২৯৪টি, অস্ট্রেলিয়ার অ্যাডাম গিলক্রিস্ট ২৮২, শ্রীলঙ্কান সাবেক অধিনায়ক কুমার সাঙ্গাকারা ২৭০টি ও পাকিস্তানের সাবেক অধিনায়ক মঈন খান খেলেছেন ২১১ ওয়ানডে। উইকেটরক্ষকদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি গড় ধোনিরই। বাউচারের ওয়ানডে গড় ২৮.৫৭, গিলক্রিস্টের ৩৫.৮৯, সাঙ্গাকারার ৩৭.৮৩ ও মঈন খানের ২৩.০০। সাঙ্গাকারা সব মিলিয়ে খেলেছেন অবশ্য ৩১৪ ম্যাচ। শুধু উইকেটরক্ষক হিসেবে খেলা ২৭০ ওয়ানডেতে তাঁর গড়টা ৩৯.৫৪। তাও সেটা ধোনির ৫১.৪১-এর চেয়ে অনেক কম।
ধোনির প্রিয় গাড়ির নাম হ্যামার। ব্যাটিং দেখে অনেকেই বলেন ব্যাটের নামও হওয়া উচিত ছিল 'হ্যামার'। ক্রিজে এসে কয়েকটা বল দেখো তারপরই ধুমধাড়াক্কা। দু-চারটা মিস হবে, কপালজোরে কয়েকটা ক্যাচ গলবে, কিন্তু বাজি রাখতে পারেন, ব্যাটের মাঝখানে একবার লাগলে বল উড়ে এসে গ্যালারিতে পড়বেই। 'হ্যামার ইফেক্ট'!
ইয়ান চ্যাপেল তাঁর ব্যাটিং দেখে বলেছিলেন, 'কার্যকরী কিন্তু আকর্ষণহীন ব্যাটিং।' ধোনির ভক্তরা পাল্টা বলতে পারেন, নিকুচি করেছে আকর্ষণীয় ব্যাটিংয়ের। সব কিছুতেই শিল্প খুঁজতে হবে কেন? বটমহ্যান্ডের মোচড়ে ওভাবে ছয়, ফেদেরারের ফোরহ্যান্ডের মতো স্টাইলে থার্ডম্যান দিয়ে মারা বাউন্ডারি, আপারকাট, অদ্ভুত ধরনের প্যাডেল সুইপ_এসব ধোনি ছাড়া দেখতে পাওয়া যেত? এসব নিয়েই তো আইসিসি র‌্যাংকিংয়ে এক নম্বর ব্যাটসম্যান হয়ে গিয়েছিলেন ধোনি।
কোচিং ক্যাম্পগুলোয় দারুণ সাড়া ফেলে দিয়েছেন ধোনি। বাচ্চারা এত র‌্যাংকিং-ট্যাংকিং বোঝে না। ভারত অধিনায়কের ছক্কাগুলোতেই তারা অভিভূত। তেমনি অভিভূত বিপক্ষ দলের অধিনায়করাও। লঙ্কান অধিনায়ক মাহেলা জয়াবর্ধনে 'টাই' ম্যাচের পর সেরা ফিনিশারই বলেছেন ধোনিকে, 'অসম্ভব ঠাণ্ডা মাথার কঠিন চরিত্রের ছেলে ধোনি। এককথায় দুর্দান্ত ফিনিশার, এই যুগের ক্রিকেটে যা বিরল।' অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক মাইকেল বেভানেরও একই মত, 'আমাদের বিপক্ষে জয়ের জন্য শেষ ওভারে ১৩ রান করতে হতো ভারতকে। অস্ট্রেলিয়ার কন্ডিশনে এটা সহজ নয়। কঠিন সেই কাজটাই ঠাণ্ডা মাথায় করে ফেলল ধোনি। আমার দেখা অন্যতম সেরা ফিনিশার সে।'
পরিসংখ্যানও সে কথা বলছে। ২০০ ম্যাচের ১৭৯ ইনিংসে ধোনি অপরাজিত ৫০ ইনিংসে। অর্থাৎ প্রতি চার ইনিংসে অপরাজিত একবারের চেয়েও বেশি। ৪৪ ফিফটি আর ৭টি সেঞ্চুরিও বলছে, প্রতি চার ইনিংস পর ফিফটি বা এর বেশি রানের দেখা পেয়েছেন একটি করে। ক্যারিয়ার গড় ৫১.৪১ হলেও রান তাড়া করে পাওয়া জয়ের ম্যাচগুলোতে সেটা হয়ে গেছে দ্বিগুণ! রান তাড়া করে ভারতের ৪৯টি জয়ের ম্যাচে ধোনি অপরাজিত ছিলেন ৩০টিতে। এই ম্যাচগুলোতে তাঁর গড় ১০৪.৮৯!
বিশ্বকাপ ফাইনালেই যেমন শ্রীলঙ্কার ২৭৪ রান তাড়া করতে নেমে একটা সময় ৩১ রানে ২ আর ১১৪ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলেছিল ভারত। ৫ নম্বরে নেমে ৭৯ বলে ৮ বাউন্ডারি ও ২ ছক্কায় ৯১ রানের অমর ইনিংসে ভারতের বিশ্বকাপ জয় নিশ্চিত করেন ধোনিই। ২০০৫ সালের ফেব্রুয়ারিতে জয়পুরে শ্রীলঙ্কার ২৯৮ রানের জবাবে অপরাজিত ১৮৩ করে ২৩ বল বাকি থাকতে জিতিয়েছিলেন ভারতকে। এ ছাড়া ২০০৬ সালের এপ্রিলে লাহোরে পাকিস্তানের ২৮৮ রানের চ্যালেঞ্জ ভারত ৪৭.৪ ওভারে পেরিয়ে যায় ধোনির ৪৬ বলে অপরাজিত ৭২-এ। এর সঙ্গে চলে আসবে এবারের ত্রিদেশীয় সিরিজে অস্ট্রেলিয়া আর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচ দুটির কথাও।
অপরাজিত ৪৪ ও ৫৮ রানের ইনিংস দুটো এমন সময়ে খেলেছেন যখন তাঁর টেস্ট নেতৃত্ব হুমকির মুখে। একটা সময় ছিল যখন ধোনি যা-ই ছুঁচ্ছিলেন তা-ই সোনা হয়ে যাচ্ছিল। ২০০৭-এ টোয়েন্টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয় দিয়ে শুরু। তারপর পন্টিংদের তাঁদেরই মাঠে শুইয়ে দেওয়া। শ্রীলঙ্কা, নিউজিল্যান্ডের পর সফল ২০১১ বিশ্বকাপেও। কিন্তু এখন ক্রিকেটের এক অভাবনীয় মোড়ের সামনে দাঁড়িয়ে তিনি। টেস্টে সাফল্য শব্দটাই আস্তে আস্তে হারিয়ে যাচ্ছে ভারত অধিনায়কের অভিধান থেকে। বিদেশের মাটিতে টানা ৮ ম্যাচে (সাসপেনশনের কারণে এক ম্যাচে ছিলেন না) যাচ্ছেতাইভাবে হারটা ঠিক হজম করতে পারছেন না ভারতীয় সাবেকরা। এমন সময়ে অসাধারণ এই দুটো ইনিংস নতুন অঙ্েিজনই জোগাতে পারে তাঁকে।

* ক্যারিয়ার গড় ৫১.৪১ হলেও রান তাড়া করে পাওয়া জয়ের ম্যাচগুলোতে সেটা হয়ে গেছে দ্বিগুণ! রান তাড়া করে ভারতের ৪৯টি জয়ের ম্যাচে ধোনি অপরাজিত ছিলেন ৩০টিতে। এই ম্যাচগুলোতে তাঁর গড় ১০৪.৮৯!
* একমাত্র ভারতীয় উইকেটরক্ষক হিসেবে ২০০ ওয়ানডে খেলা ক্রিকেটার এখন তিনিই। অ্যাডিলেডে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি ছিল ওয়ানডেতে তাঁর ২০০তম। উইকেটরক্ষক হিসেবে ২০০ বা তার বেশি ম্যাচ খেলেছেন কেবল পাঁচজন।
avatar
nazmul07npk

Posts : 191
Points : 573
Reputation : 2
Join date : 2012-01-19
Age : 24
Location : Dhaka Cantonment,Dhaka

View user profile http://www.facebook.com/mdnazmulasif

Back to top Go down

View previous topic View next topic Back to top


 
Permissions in this forum:
You cannot reply to topics in this forum